শোভন

রানার প্রতিবেদন : কলকাতার প্রাক্তন মেয়র শোভন চট্টোপাধ্যায়কে নিয়ে জল্পনা থামার বিরাম নেই। তাকে নিয়ে হঠাৎই শুরু হয়েছে দড়ি টানাটানি। একদিকে তৃনমূল, যারা তাকে একসময় ত্যাজ্য করেছিল, অন্যদিকে বিজেপি, যারা হাত বাড়িয়ে আছে শোভনকে আলিঙ্গন করার জন্য। বিজেপির তৎপরতায় নড়েচড়ে বসে এখন নতুন করে শোভনকে কাছে পেতে চাইছে তৃনমূল। কার ডাকে সাড়া দেবেন শোভন? এই প্রশ্ন নিয়ে জল্পনা-কল্পনার মধ্যেই নতুন আলোচনার খোরাক যুগিয়ে হটাৎ দিল্লি পারি দিলেন শোভন চট্টোপাধ্যায়। সঙ্গে গিয়েছেন তার বান্ধবী বৈশাখী চট্টোপাধ্যায়। এই বৈশাখীর সঙ্গেও নিরন্তর যোগাযোগ করে যাচ্ছে বিজেপি-তৃনমূল দুই পক্ষই।বৈশাখী তার ঘনিষ্ঠ মহলে বলেছেন, সাত তারিখ শোভনের জন্মদিনটা নিরিবিলিতে কাটানোর জন্যই তাদের রাজধানী যাত্রা।

আরও পড়ুন : ভরা বিতর্কের মধ্যেই ইসকনের ডাকে সাড়া দিলেন নুসরত


তৃণমূলের সঙ্গে শোভনের দূরত্ব তৈরি হবার পর থেকেই তার দিকে হাত বাড়িয়েছে বিজেপি। কিন্তু সেই ডাকে এখনও সারা দেননি শোভন। কিছুদিন রাজনীতির বাইরে একান্ত ব্যক্তিগত পরিসরে সময় কাটাতে চান, এমন ইচ্ছাই প্রকাশ করেছিলেন তিনি। তারপর থেকে দীর্ঘদিন সকলের নজরের বাইরেই ছিলেন তিনি। কিন্তু লোকসভা ভোটের পরই আবার সামনে চলে আসেন শোভন। মমতার কাটমানি নিদানের পর কলকাতার বহু কাউন্সিলার ভীত সন্ত্রস্ত হয়ে যোগাযোগ করেন শোভনের সঙ্গে। শোভনকে সামনে রেখে তারা নতুন করে রাজনৈতিক পরিকল্পনার ইচ্ছা প্রকাশ করেন, এই ঘটনায় নতুন তৎপরতা শুরু হয় তৃনমূল শিবিরে। ফিরহাদ হাকিম, পার্থ চট্টোপাধ্যায়কে ময়দানে নামিয়ে নামিয়ে ব্যর্থ হবার পর নিজের বিশ্বস্ত দূত পাঠিয়ে দলের কাজে যোগ দেবার আমন্ত্রণ পাঠান মমতা। তারপরই এই দিল্লি যাত্রায় জল্পনায় নতুন ইন্ধন জোগালো।

আরও পড়ুন : ভরা বিতর্কের মধ্যেই ইসকনের ডাকে সাড়া দিলেন নুসরত


বিজেপিও শোভনকে দলে পেতে মরিয়া হয়েই আসরে নেমেছে। বিজেপির পরিকল্পনা অনুযায়ী, আগামী বছর কলকাতা পুরসভা ভোটে শোভনকে মেয়র পদপ্রার্থী করে নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে চায় গেরুয়া শিবির। লোকসভা ভোটের ফলে দেখা যাচ্ছে কলকাতা পুর এলাকার ৫০ টি ওয়ার্ডে সবচেয়ে বেশি ভোট পেয়েছে বিজেপি। অন্যদিকে ভোটের ফল প্রকাশের পর আরো নড়বড়ে হয়েছে তৃনমূল। এরসঙ্গে শোভনকে যুক্ত করা গেলে বেশকিছু কাউন্সিলরকেও সঙ্গে পাওয়া যাবে। ফলে পুর ভোটের আগে কলকাতায় নিজেদের ঘর গোছানোর জন্যই শোভনকে সঙ্গে পেতে চায় বিজেপি। লোকসভা ভোট মিটে যাবার পর আবার শোভনের সঙ্গে জোগাযোগ গড়ে তুলেছে তারা। এই অবস্থায় শোভনের দিল্লি যাত্রা জল্পনাকে তুঙ্গে তুলেছে। যদিও শোভনের বান্ধবী এটাকে একান্ত ব্যক্তিগত সফর বলছেন। জানিয়েছেন জন্মদিনে নিরিবিলিতে কাটানোর পরিকল্পনা নিয়েই এই দিল্লি যাত্রা। কিন্তু জন্মদিনে নিরিবিলিতে কাটানোর জন্য দিল্লি কি উপযুক্ত জায়গা? এই প্রশ্ন ঘুরপাক খাচ্ছে রাজনৈতিক মহলে।


রানারের খবর ভালো লাগলে Like করুন ‘ runnerbangla ‘ Facebook Page