রানার প্রতিবেদন : মহ: সেলিম আইএসআই এজেন্ট-এর মতো, বিজেপি নেতা সায়ন্তন বসুর এই মন্তব্যে ক্ষুব্ধ মহ:সেলিম বসুর বিরুদ্ধে মামলার হুমকি দিলেন। রবিবার তিনি জানিয়েছেন, আপাতত কলকাতার বাইরে আছেন, ফিরেই বসবেন আইনজীবীদের সঙ্গে।

আরও পড়ুন : সৌরভ – অমিত শাহ বৈঠক, মহারাজের ভবিষ্যৎ নিয়ে জল্পনা তুঙ্গে

তাদের সঙ্গে কথা বলেই সায়ন্তন বসুর বিরুদ্ধে আদালতে মামলা দায়ের করবেন। শুধু তাই নয়, বিজেপি নেতার এই বক্তব্য ছাপার জন্য কলাকাতার দুটি প্রথম সারির দৈনিক পত্রিকার বিরুদ্ধেও মামলা দায়েরের সিধান্ত নিয়েছেন তিনি। পত্রিকার সম্পাদক এবং পরিবেশকের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হবে।


সেলিমের টুইটার একাউন্ট সাসপেন্ড করে দেওয়াকে কেন্দ্র করে এই বিতর্ক দানা বেঁধেছে। সেলিমের অভিযোগ, বিজেপির আইটি সেল এই কাজ করেছে। তাঁর বক্তব্য, গত পাঁচ অক্টোবর তিনি একটি টুইট করেছিলেন, লিখেছিলেন,” জ্যোতি বসু বলেছিলেন, বিজেপি অসভ্য-বর্বর দের দল।

আরও পড়ুন : নারদ কাণ্ডে সিবিআই -এর নজরে শোভন, বন্ধুকে বাঁচাতে বিজেপির দরজায় বৈশাখী

বাংলার মানুষকে এখন এই বর্বরতা রুখতে হবে। আমরা স্বামী বিকাননন্দ পড়েছি, রামকৃষ্ণ পড়েছি, তারা কোথাও বলেননি, নিজের ধর্মকে ভালোবাসতে হলে অন্যের ধর্মকে ঘৃণা করতে হবে।” এই টুইটের বিরুদ্ধে অসত্য অভিযোগ করে বিজেপি আমার টুইটার বন্ধ করিয়েছে, অভিযোগ সেলিমের।


এই ঘটনার প্রেক্ষিতে প্রতিক্রিয়া জানিয়েছে বিজেপি। দলের সাধারণ সম্পাদক সায়ন্তন বসু বলেছেন, টুইটার কর্তৃপক্ষ কি করেছে জানি না, তবে মহম্মদ সেলিম আইএসআই এজেন্টের মতো কথা বলেন, তিনি পাকিস্তানের সুরে কথা বলেন, সুতরাং তার টুইটার যদি বন্ধ হয়ে গিয়ে থাকে তবে তার পেছনে যুক্তি আছে।

আরও পড়ুন : মোদি ছেড়ে রাহুল – মমতার হাত ধরেই ডুবেছি, স্বীকারোক্তি চন্দ্রবাবুর

সেলিম অবশ্য বলেছেন, যাদবপুরের ঘটনার পর পুলিশ উদ্যোগী হয়ে বিজেপির হয়ে যারা ট্রোল করে তাদের সেই ফেক আক্যাউন্টগুলো বন্ধের জন্য তৎপর হয়েছিল। প্রায় হাজার খানেক ফেক আক্যাউন্ট বন্ধ করা হয়েছিল। এখন আবার নতুন করে তাদের সেই ফেক আক্যাউন্ট গুলো খুলতে হচ্ছে, সুতরাং গায়ের জ্বালা মেটাতে যে তারা একাজ করেছে তা স্পষ্ট।