রানার প্রতিবেদন : বর্তমান ভারতে হিন্দু চিন্তায় ক্রমশ সংকীর্ণতা গ্রাস করছে, কিন্তু বাংলাদেশের মুসলিম চিন্তায় ততটা সংকীর্ণতা নেই। এই মন্তব্য করলেন নোবেল জয়ী অর্থনীতিবিদ অমর্ত্য সেন। তিনি বলেন, এখন ভারতে কেউ গরু খেলে তাকে পিটিয়ে মারা হয়। ভারতের বহুত্ববাদ আজ সঙ্কটে। তিনি বলেন, ২০০৭ সালে ভারতে মুসলিম রাষ্ট্রপতি, শিখ প্রধানমন্ত্রী এবং শাসকদলের নেতা ছিলেন একজন খ্রিস্টান।

আরও পড়ুন : অঞ্জলি কেন দেবে ? ওকে পুড়িয়ে মেরে দাও,শুরু হলো নুসরতকে হুমকি

সেই সময় সংসদে হিন্দুরাই ছিল সংখ্যায় বেশি কিন্তু তারা হিন্দুত্ববাদ চাপিয়ে দেবার চেষ্টা করেনি। এখন তার ব্যতিক্রম হচ্ছে বলে মনে করেন তিনি। বলেন, প্রতিবেশি বাংলাদেশ এখন ভারতকে ছাপিয়ে যেতে শুরু করেছে। ওদের গড় আয়ু এখন ভারতের থেকে পাঁচ বছর বেশি। এমনকি নারী শিক্ষায় ওরা এগিয়ে গেছে। আমেরিকার বিখ্যাত ম্যাগাজিন “দ্য নিউ ইয়র্কার”কে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে এই মন্তব্য করেছেন তিনি।


অমর্ত্য সেন আক্ষেপ প্রকাশ করে বলেছেন, ভারতে এখন সবকিছু নিয়ন্ত্রণ করতে চাইছে উগ্র হিন্দু চিন্তা। এই শক্তিকে থামানোর মতো এখন কোনও ধর্মনিরপেক্ষ রাজনৈতিক শক্তিই নেই। এমনকি সুপ্রিম কোর্টও বহুত্ববাদকে রক্ষা করতে অভিভাবকের ভূমিকা নিতে পারেনি বলে মনে করেন তিনি। অমর্ত্য সেন বলেন, একশ বছর আগেই ভারতে হিন্দুত্ববাদীরা সক্রিয় ছিল।

আরও পড়ুন : সরকারের বিপুল সাফল্য, শেষপর্যন্ত সুইস ব্যাঙ্কের নথি এলো দিল্লির হাতে

তাদেরই হাতে খুন হতে হয়েছিল মহাত্মা গান্ধীকে কিন্তু তারা তখন জন সমাজকে এতটা প্রভাবিত করতে পারেনি সেই সময়। ফলে হিন্দুত্ববাদীদের নিয়ে কেউ আতঙ্কিত ছিল না। আজ পরিস্থিতি ভিন্ন। ভারতীয় সমাজে আজ জেঁকে বসেছে ভয়ের রাজনীতি, এমনকি গন মাধ্যমগুলো পর্যন্ত ভীত।